অনেকেই অনেক চেস্টা করেও ওজন কমাতে পারছেন না, এর জন্যে অনেক কিছুই করছেন কিন্তু কোনোভাবেই ভালো ফলাফল পাচ্ছেন না । 
আমরা জানতে চাই আপনার অয়েট লস স্ট্রাটেজি টা কি ঠিক আছে ?  যাইহোক আমরা আপনাকে আজকে জানাবো সফলভাবে ওয়েট লস করার নিয়ম। 

আশা করি আপনি আমাদের ওয়েট লস টিপ্সের মাধ্যমে নিজেকে নিজের লখ্যমাত্রায় নিয়ে যেতে সক্ষম হবেন। 


১. আমাদের সকালের নাস্তা খুবই গুরুত্তপুর্ন , সকাল টা যদি শক্তিশালি ভাবে শুরু করা যায় আমাদের শরীরের ইঞ্জিনকে তাহলে কাজ কর্মেও নিজেকে চাঙ্গা রাখা সম্ভব। 
আমরা রাত্রে ঘুমানোর সময় অনেক দির্ঘ সময়ের জন্যে কিছু না খেয়ে থাকি, এই জন্যে আমাদেরকে সকালের নাস্তায় যদি পাওয়ারফুল কোনো শেইক থাকে তাহলে সারাদিন শক্তি পেতে এবং মাসল রিপেয়ার করতে সাহায্য করে।  
আমরা সবাই সকালের নাস্তায় এক কাপ কফি এবং সাথে অনেক খাবারের কথা চিন্তা করি। কিন্তু এটা সবসময় সম্ভব নাও হতে পারে। 
এই সময় আমরা আমাদের সাধারন ব্রেক ফাস্টের সাথে কোনো হাই প্রোটিন শেইক রাখতে পারি। 

এটা বানানো খুবই সহজ। যেমন- ১/৩ কাপ ঠাণ্ডা কফি, ২/৩ কাপ মিষ্টি ছাড়া আল্মন্ড অথবা নারকেল  দুধ, ২-৩ টুকরা বরফ টুকরো, ১/৩ কাপ ড্রাই অটস, ২চামচ হোয়ে প্রোটিন। 
মাঝে মাঝে এর সাথে পিনাট বাটার, ফ্লেক্স সিডস এইসবও যোগ করতে পারেন। 

সব কিছু একসাথে ব্লেন্ড করে বোটলে সেইক করে পরিবেশন করুন আপনার স্বাস্থ্যকর শেইক। 

২. যখন আপনি লিন বডী বানাতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তখন আপনাকে চিনি থেকে নিজেকে যতটা সম্ভব দুরুত্ত বজায়ে চলতে হবে । 
চিনি আপনার শরীরের রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধি করে, তারপর দ্রুত ইন্সুলিনের মাত্রা বৃদ্ধি ফ্যাট জমা হতে থাকে। 

চেস্টা করুন অন্তত ত্রিশ দিনের জন্যে রিফাইনিং চিনি ব্যবহার থেকে বিরত থাকতে। 
এই সময় আপনি ফল থেকে প্রাকৃতিক চিনি গ্রহন করুন। কোনো প্রকার আরটিফেসিয়াল চিনিযুক্ত জুস গ্রহন না করে ফলের জুসের উপর নির্ভর করুন অথবা এর বদলে চিনি ছাড়া গ্রিন টি গ্রহন করুন।
গ্রিন টি এমনিতেই ফ্যাট বার্ন করার প্রতিষেধক। 

৩. আপনার খাবারে আগের চেয়ে পরিমানে অধিক মরিচ ব্যবহার করুন ।  তবে তাই বলে ভাববেন না আমরা বলছি আপনাকে এমন কিছু করতে যা  খাওয়ার পর আপনার পেটের অবস্থা খারাপ হয়ে যায়। 
আমরা বলছি; যেটুকু পরিমান মরিচ ব্যবহার করলে আপনার কোনো রকম সমস্যা হবেনা ঠিক সেই পরিমান। 
মরিচ আপনার শরীরের ফ্যাট বার্ন করতে বারতি সহযোগিতা করবে। রিসার্চ মতে মরিচের ব্যবহার ধীরে ধীরে বৃদ্ধি করতে পারবেন, যাকিনা আপনার খাওয়ার অভ্যাস এর উপর নির্ভর করবে।  

৪.  অনেকেরই গ্লুটেন ও ডেইরী জাতীয় খাবারের জন্যে ওয়েট লস করতে অসুবিধা হয়ে থাকে। 
যাদের এই ধরনের সমস্যা আছে তারা কিছুদিনের জন্যে এই জাতীয় খাবার বর্জন করলে আশা করি খুব ভালো ফলাফল পাবেন। তবে এই সমস্যা সবার ক্ষেত্রে হয়না। 

৫.  ভেজিটেবল জুস আমার কাছে খুব প্রিয়। এটা আপনি প্রতিদিন অনেকবার ব্যবহার করতে পারবেন আপনার ডায়েট লিস্টে। 
এটা শুধু ফ্যাট বার্নের জন্যেই নয়; ত্বকের এবং নখের জন্যেও অনেক উপকারী । 
পছন্দের একটা রেসিপি হলো- পাতা কপি, পালং শাক, শসা,লেবু,গোল মরিচ এবং আদা একসাথে দিয়ে ব্লেন্ড করা জুস। চাইলে এর সাথে মিস্টির জন্যে সাথে একটি আপেলের অর্ধেকটা ব্যবহার করতে পারেন। 

৬. যখনি আমরা ফ্যাট বার্নিং এর জন্যে কার্ডিও করার কথা বলি তখনি বলতে হয় (HIIT) এর কথা। HIIT  মানে হলো high-intensity interval training। 

এই ধরনের অয়ার্ক আউট গুলো আপনি খোলা আকাশের নিচে করুন এবং তাজা বাতাস গ্রহন করুন। এই ধরনের ওয়ার্ক আউটগুলো এমন সময় করুন যখন আপনার মন মেজাজ চাঙ্গা থাকে। 

৭. এতো গরমের দিনে কি একটু ঠাণ্ডা কিছুর ব্যবস্থার প্রয়োজন নেই ? দুঃখিত আমরা আইসক্রিম এবং তার সাথের ক্যলরির কথা বলতে চাচ্ছিনা। 

দুই কাপ পানি নিন তারসাথে এমিনো মিশান এবং বরফ দিন পরিমান মতো; চাইলে এর সাথে কিছু স্ট্রবেরি মিশাতে পারেন । 
এটা আপনি আইসক্রিমের চেয়ে বেশ ইঞ্জয় করবেন এবং পোস্ট ওয়ার্ক আউটের পর রিকোভেরিতেও দারুন কাজ করবে।

৮. অন্য আরেকভাবে আপনি দ্রুত ফ্যাট বার্ন করতে পারবেন, ব্যায়ামের মাঝে বিশ্রামের সময় কমানোর মাধ্যমে। আপনার লক্ষ্য থাকবে ব্যায়ামের মাঝে ৩০ সেকেন্ড রেস্ট নিবেন। 

৯. যতটুকু সম্ভব সালাদ খান। চেস্টা করুন প্রতিটা মিলের সাথেই সালাদ জাতীয় খাবার রাখার জন্যে। 
এতে করে আপনি বাড়তি নিউট্রেশন পাবেন, ভিটামিন পাবেন এবং ক্ষুধাও লাগবেনা। সালাদ বিভিন্ন ধরনের আপনার পছন্দ মতো নিতে পারেন। 

WEIGHT LOSS PRODUCTS (click here).

Articles Category: FAT LOSS TIPS .

Share: